যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে কোনো আলোচনা হবে না: ইরান

যুক্তরাষ্ট্রের ড্রোন হামলায় ইরানের কুদস বাহিনীর প্রধান জেনারেল কাসেম সোলাইমানি নিহত হওয়ার ঘটনায় আমেরিকার বিরুদ্ধে ‘বড় ধরনের প্রতিশোধ’ নেয়ার ঘোষণা দিয়েছে ইরান। তারই জের ধরে বুধবার ইরাকে যুক্তরাষ্ট্রের এরবিল ও আল-আসাদ বিমান ঘাঁটিতে ভয়াবহ মিসাইল হামলা চালিয়েছে তেহরান। এতে ৮০ মার্কিন সেনা নিহত ও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে সামরিক সরঞ্জামের- এমনটাই দাবি ইরানের।

এদিকে, আমেরিকার সঙ্গে কোনো শর্ত ছাড়া আলোচনার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছে ইরান। এ বিষয়ে জাতিসংঘে ইরানের রাষ্ট্রদূত মাজিদ তখত রাভানচি বলেন, নিষেধাজ্ঞা প্রয়োগ করে আবার আলোচনার আহবান অবিশ্বাস্য। বৃহস্পতিবার দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা ইরনা নিউজ এ তথ্য প্রকাশ করেছে।

জাতিসংঘের কাছে পাঠানো এক চিঠির মাধ্যমে ইরানের রাষ্ট্রদূত মাজিদ রাভানচি জানান, তিন জানুয়ারি ইরানি জেনারেল কাসেম সোলাইমানিকে হত্যার মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র নতুন ধারাবাহিক উত্তেজনা ও শত্রুতার সূচনা করেছে। তবে ইরান কোনো যুদ্ধ কিংবা উত্তেজনা বাড়াতে চায় না। সেই সঙ্গে জাতিসংঘ সনদের ৫১ ধারা উল্লেখ করে মার্কিন ঘাঁটিতে হামলার যৌক্তিকতা তুলে ধরা হয়েছে চিঠিতে।
এর আগে, জাতিসংঘে দেয়া এক চিঠিতে ট্রাম্প প্রশাসন জানিয়েছে ইরানের সঙ্গে কোনো শর্ত ছাড়াই আলোচনা করতে প্রস্তুত রয়েছে। জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে দেয়া ওই চিঠিতে জাতিসংঘে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত কেলি ক্র্যাফট জানান, ইরানের দ্বারা আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তা যাতে হুমকির মুখে না পড়ে এবং উত্তেজনা যাতে বৃদ্ধি না পায় সেজন্য যুক্তরাষ্ট্র আলোচনা করতে প্রস্তুত রয়েছে। ওই চিঠিতে কাসেম সোলাইমানিকে হত্যার যুক্তি হিসেবে নিজেদের রক্ষা করার জন্যই এ কাজ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

Loading...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here