এক জন সাংবাদিক কেন দলীয় পরিচয়ে পরিচিত হবে?

খান আতাউর রাহমান ঃ সাংবাদিকতা একটি মহান পেশা। প্রকৃত অর্থে সাংবাদিকতা আর দশটি পেশার মতো নয়। সমাজের প্রতিদিনের জীবনচিত্র সংবাদপত্র। দৈনন্দিন জীবনে ঘটে যাওয়া বিভিন্ন ঘটনা ই সংবাদ।কিন্তু সব ঘটনা ই সংবাদ নয়।আমেরিকান সাংবাদিক Charles Anderson Dana (1819-1897) বলেছেন, “When a dog bites a man that is not news, but when a man bites a dog that is news.”
আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা আইএলও’র মতে, সাংবাদিকতা একটি ঝুঁকিপূর্ণ পেশাও। এছাড়াও এই বিশাল পৃথিবীর সব খবরাখবর একজন সাংবাদিকের পক্ষে একা কভার করা সম্ভব না।তাই পৃথিবীতে ঘটে যাওয়া সকল ঘটনাবলীর মাত্র কয়েকটিকে আমরা সংবাদ বলে গণ্য করতে পারি। গুজব অথবা অসত্য ঘটনা কখনোই সংবাদ হবে না সুস্পস্টতার অভাবে। একজন সাংবাদিককে কোন সংবাদ প্রকাশের আগে ব্যাপারটির সত্যতা যাচাই করতে হয়। সংবাদ মাত্রই ঘটে যাওয়া সত্য কোন ঘটনা।একজন দক্ষ এবং মহান সাংবাদিক অবশ্যই অন্তর্দৃষ্টি সম্পন্ন হবেন। ঘটনা ঘটে যাওয়ার আগে তিনি তার অনুধাবন ক্ষমতা দ্বারা ব্যাপারটি ধরে ফেলতে পারবেন জনকল্যাণে যা খুব ই গুরুত্বপূর্ন। আমাদের পৃথিবী বদলে যাচ্ছে,বদলে যাচ্ছে তার রাজনীতি, অর্থনীতি আর মানুষের স্বাভাবিক জীবন যাপনের ধারা। বদলে যাচ্ছে মানুষের চিন্তা-চেতনা, রুচি, বিবেকবোধের দৃষ্টিকোণ আর দীর্ঘদিনের চলমান অভ্যাস।এই পরিবর্তনের সাথে বদলে যাছে সাংবাদিকতার সনাতনি ধারাও। বস্তুনিষ্ঠ
সাংবাদিকতার স্থান এখন দখল করেছে কর্পোরেট সাংবাদিকতা।একজন অভিজ্ঞ সাংবাদিক এই রুপান্তর গুলোকে শুধু দেখেই শেষ করেন না, সে গুলোকে তিনি নীবিড় পর্যবেক্ষণেও রাখেন এবং তার নিজস্ব এথিক্স এর আলোকে তিনি তার চলার পথ বা সংবাদ লেখার পথ ঠিক করে নেন।

প্রকৃত সাংবাদিকের দায়িত্ব বস্তুনিষ্ঠ ও সততাপূর্ণ সংবাদ পরিবেশন করা। একজন রিপোর্টার যা প্রকাশ করতে পারেন তা হল নিবিড় সত্য বা জনমত। সাংবাদিকতা যেমন এক বিধ্বস্ত জাতিকে পুনর্গঠনে অবদান রাখতে পারে, ঠিক তেমনি সাংবাদিকতার নামে মিথ্যাচারিতা, পক্ষপাতিত্ব, স্বার্থপরতা এক সুসংহত জাতিকে হিংসাত্মক যুদ্ধের দাবানলে অগ্রসর ভূমিকা রাখতে পারে। গণতান্ত্রিক ও সভ্য সমাজ ব্যবস্থায় সাংবাদিকতা অতটা ঝুঁকিপূর্ণ নয়; কিন্তু আমাদের দেশের গোটা সমাজ ব্যবস্থাই বিভক্ত হয়ে পড়েছে। এই বিভক্তি কোনো নীতিনৈতিকতা বা আদর্শের ভিত্তিতে নয়, এটা মূলত অন্ধ রাজনৈতিক পক্ষাবলম্বন। পেশাজীবীরাও আজ বিভক্ত। সাংবাদিকতাও এই বিভক্তির হাত থেকে বাঁচতে পারেনি, যা দুর্ভাগ্যজনক। পেশায় অনৈক্য, সাংবাদিকতা আর ব্যক্তিগত পছন্দ-অপছন্দ তথা রাজনীতিকে গুলিয়ে ফেলা, মিডিয়া মালিকানার আপন ব্যবসায়ীকে স্বার্থের মতো কারণগুলোও সাংবাদিক হত্যা-নির্যাতনের অন্যতম কারণ হয়ে দাঁড়িছে। আজ আমাদের সাংবাদিকরা দলীয় পরিচয়ে পরিচিত বহন করেন! কেউ আওয়ামীপন্থী, কেউ বিএনপিপন্থী, কেউ জামায়াতপন্থী, কেউ জাতীয় পার্টিপন্থী আবার কেউ-বা কমিউনিস্টপন্থী সাংবাদিক। এই দলীয় সাংবাদিকতাও সাংবাদিকদের পেশা ও জীবনের ঝুঁকিকে বাড়িয়ে দিচ্ছে প্রতিনিয়ত। তাই বলে আমি এটা বলছি না যে, সবাই দলীয় সাংবাদিকতা করছেন, ব্যতিক্রম অবশ্যই আছে। কিন্তু ব্যতিক্রম উদাহরণ নয়। সত্য কখনও বিপজ্জনক হতে পারে না। আমি এই দর্শনেই বিশ্বাস করি। আমি আরও মনে করি, যে সত্যান্বেষণই সাংবাদিকতার মহান ব্রত। প্রত্যেক সাংবাদিকই মানবাধিকার কর্মীÑ এটাও আমি বিশ্বাস করি। একজন মানবাধিকার কর্মী মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনার তথ্যানুসন্ধান করে রিপোর্ট প্রণয়ন করেন। ঠিক একইভাবে একজন সাংবাদিককেও ঘটনার পেছনে ঘটা সত্যটাকে খুঁজে অনুসন্ধান করে জনগণের সামনে তুলে ধরতে হবে। বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড তথা মানবাধিকার লঙ্ঘন, ধর্মীয় সংখ্যালঘু-আদিবাসী নির্যাতন, নারী ও শিশু নির্যাতন, দুর্নীতি-জঙ্গিবাদ ও রাজনৈতিক সন্ত্রাস নিয়ে অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা করতে হবে একজন প্রকৃত সাংবাদিককে। পৃথিবী বদলে যাচ্ছে, বদলে যাচ্ছে তার রাজনীতি, অর্থনীতি আর মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাপনের ধারা। বদলে যাচ্ছে মানুষের চিন্তা-চেতনা, রুচি, বিবেকবোধের দৃষ্টিকোণ আর দীর্ঘদিনের চলমান অভ্যাস। এই পরিবর্তনের সাথে বদলে যাচ্ছে সাংবাদিকতার সনাতনি ধারাও। বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতার স্থান এখন দখল করেছে করপোরেট সাংবাদিকতা।

একজন অভিজ্ঞ সাংবাদিক এই রূপান্তরগুলোকে শুধু দেখেই শেষ করতে পারেন না, সেগুলোকে তার নিবিড় পর্যবেক্ষণেও রাখতে হবে এবং তার নিজস্ব এথিক্সের আলোকে চলার পথ বা সংবাদ লেখার পথ ঠিক করতে হবে। অনেক ধরনের ঘটনাই ঘটে প্রতিদিন। তবে গুরুত্বের বিচারে সব ঘটনা একই মানের না হওয়ায় সবই সংবাদ হিসেবে প্রকাশিত হয় না। সংবাদপত্রকে বলা হয় সমাজের দর্পণ, কিন্তু এদিক থেকে চিন্তা করলে সংবাদপত্র সমাজের দর্পণ নয়। কারণ সমাজে ঘটে যাওয়া সব ঘটনাবলীই সংবাদপত্রে প্রকাশিত হয় না। একজন সাংবাদিকের নিজস্ব মতামত প্রকাশের জায়গা সংবাদপত্র নয়, ঘটনা যতটুকু ঘটে, ততটুকুই বলবেন একজন সাংবাদিক; এর বেশি নয়। আজকের সাংবাদিকতার জন্য প্রধান চ্যালেঞ্জও এটাই। জনমত সৃষ্টিতে তাই আজকের সাংবাদিকরা রাখতে পারেন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। একটি সাধারণ খবরকে একজন সাংবাদিক এমনভাবে উপস্থাপন করতে পারেন, যাতে তা পাঠক পড়তে আগ্রহ প্রকাশ করেন এবং তা পাঠকের মনে আলোড়ন সৃষ্টি করে। জনমতের সাথে অনেক বিষয় নির্ভরশীল; যেমন দেশের উন্নয়নগত সিদ্ধান্ত সমাজের মানুষের ভবিষ্যৎ। তাই জনমত গঠনের সময় একজন সাংবাদিককে খুবই সচেতন থাকতে হয়। কারণ একজন সাংবাদিকই পারেন সঠিক এবং উন্নয়নমূলক সংবাদ প্রকাশের মাধ্যমে দেশকে সঠিক পথে পরিচালিত করতে। যিনি সাংবাদিক তাকে সংবাদ তৈরি করতে হবে দেশপ্রেমের জায়গা থেকে, জনকল্যাণের জায়গা থেকে এবং তা অবশ্যই সততার সাথে। একজন সাংবাদিককে চিন্তা করতে হবে জনমতের জায়গা থেকে জনকল্যাণের জায়গা থেকে। আর যথার্থ জনকল্যাণ জনমত গঠনের ওপরই নির্ভরশীল। কিন্তু এমন জনমত গঠনকে কখনই প্রশ্রয় দেয়া যাবে না, যা দেশকে অন্ধকারের দিকে ঠেলে দেবে। তাই এ ব্যাপারে সংবাদপত্রের রিপোর্টার ও সম্পাদকদের সচেতন থাকা দরকার। একটি সৎ সংবাদ প্রকাশ করতে প্রয়োজন জনগণের সাহসী খোলামত ও অভিযোগ। আগেই বলেছি গণতান্ত্রিক ও সভ্য সমাজ ব্যবস্থায় সাংবাদিকতা অতটা ঝুঁকিপূর্ণ নয়। কিন্তু যেখানে গণতন্ত্রের অবস্থাই ভঙ্গুর, আইনের শাসন ও ন্যায়বিচার সোনার হরিণ এবং দুর্নীতি ও দলীয়করণ তৎপর, সেখানে সাংবাদিকতার পথ মসৃণ হতে পারে কি? না, কখনও নয়। তবে আশার দিক হলো, গণতন্ত্র যদি সত্যিকারার্থে চর্চা হয়, দেশে আইনের শাসন আপনা-আপনি কার্যকর হবে। আর একটা গণতান্ত্রিক সমাজে গণমাধ্যমও তার স্বাধীনতা ভোগ করতে পারবে। গণতন্ত্র ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত হলে গণমাধ্যমের ভেতরের যে সঙ্কটগুলো আছে, তা-ও দূরীভূত হবে। কাজেই কী করলে দেশের রাজনীতি সুস্থ ধারায় ফিরবে, দুর্নীতি-দরিদ্রতা হ্রাস পাবে, আইনের শাসন, ন্যায়বিচার তথা গণতন্ত্র কার্যকর হবে; সেদিকটাতেই আমাদের সবার একযোগে দেশাত্মবোধ বাড়ানোর প্রচেষ্টা চালাতে হবে। না হলে কোনো মানুষেরই জীবন ও পেশা নিরাপদ হবে না।

নিজস্ব বক্তব্য নিয়ে একটি সংবাদপত্র কখনই খুব বেশি দূর এগিয়ে যেতে পারবে না।তাকে চিন্তা করতে হবে জনমতের জায়গা থেকে জনকল্যানের জায়গা থেকে। আর যথার্থ জনকল্যান জনমত গঠনের উপর ই নির্ভরশীল।আর এমন জনমত গঠন কে কখনই প্রশ্রয় দেয়া যাবে না যা দেশ কে অন্ধকারের দিকে ঠেলে দিবে।এ ব্যাপারে তাই সংবাদপত্রের রিপোর্টার ও সম্পাদক কে সচেতন থাকা দরকার।কারণ আধুনিক গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় public policy গঠনে public opinion কেই বেশি প্রাধান্য দেয়া হয়।একটি সংবাদপত্র সাধারনত কখনই এধরনের মতামত কে সমর্থন করে না,এবং এ ধরনের ধংসাত্মক কার্যকলাপেও লিপ্ত হয় না।কারন সংবাদপত্র যেমন আগুন জালাতে জানে তেমনি জানে আগুন নিভানোর উপায়।

সর্বোপরি বিভাজন আর অসত্য থেকে আমাদের সবাইকে সরে আসতে হবে। এ কাজটি খুবই কঠিন; তবু পরিবর্তনের পথে আমাদের হাঁটতেই হবে

Loading...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here