চুয়াডাঙ্গা জেলার আলমডাঙ্গায় তিনটি কুকুরছানাকে পিটিয়ে হত্যা করায় থানায় মামলা

আব্দুল্লাহ হক চুয়াডাঙ্গা সংবাদদাতা: চুয়াডাঙ্গা জেলার আলমডাঙ্গা উপজেলার থানাপাড়ায় তিনটি কুকুর ছানাকে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে মেরে ফেলার ঘটনায় শহরজুড়ে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে চলছে তীব্র সমালোচনার ঝড়। হত্যাকারীকে আইনের আওতায় আনতে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ ঘটনা তদন্তে উপজেলা নির্বাহী অফিসার লিটন আলী, পশু সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ আব্দুল্লাহিল কাফি ও থানার পুলিশ কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এছাড়া এনজিও ‘পিপুল ফর এনিমেল ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশেন’ যশোর জোনের কর্মকর্তারা আলমডাঙ্গায় অবস্থান করছেন।

জানা গেছে, গত ২২ জানুয়ারী শহরের থানাপাড়ার ছারু চেয়ারম্যানের ছেলে রূপক মিয়া তার কাজের লোক দিয়ে একটি বিকলাঙ্গ মা কুকুরের কোল থেকে তিনটি দুগ্ধ ছানাকে গলায় দড়ি বেঁধে টেনে সড়কের ধারে নিয়ে আসে। এরপর লাঠি দিয়ে পিটিয়ে একে একে তিনটি কুকুরছানাকেই হত্যা করে। পাশেই দাড়িয়ে থাকা সুলতানুল আরেফিন তাইফু নামক এক যুবক কুকুর হত্যার এ করুন দৃশ্য মোবাইলে ধারন করে তার ফেসবুক পেইজে পোস্ট করে দেন।

তাইফু লেখেন, যখন একে একে তিনটি কুকুর ছানাকে পিটিয়ে হত্যা করা হচ্ছিল তখন বিকলাঙ্গ ম্ াকুকুর করুন চোখে তার সন্তান হত্যার দৃশ্য দেখছিল। করুন এই দৃশ্য দেখে পাড়ার কোমলমতি শিশুরাও কেঁদে পড়ে। আর এই পোস্টেই কুকুর হত্যাকারীর বিরুদ্ধে তীব্র সমালোচনার ঝড় ওঠে। অনেকেই কমেন্টে হত্যাকারীকে আইনের আওতায় আনার দাবি জানাতে থাকে।

মঙ্গলবার বিকেলে পিপুল ফর এনিমেল ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। এ সময় পাড়ার ৭ জন প্রত্যক্ষদর্শী থানায় গিয়ে নির্মম এই হত্যাকান্ডের বর্ননা দেন। এর পরপরই সরকারী পদস্থ কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার লিটন আলী জানান, আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে কুকুর ছানা হত্যার সত্যতা পেয়েছি। এখন বিষয়টি আইনের গতিতে চলবে।

উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ আব্দুল্লাহিল কাফি জানান, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এই নির্মমতার সতস্যতা পাওয়া গেছে। থানায় মামলা নেওয়ার জন্য আমি একটি প্রতিবেদন দাখিল করেছি।

থানার অীফসার ইনচার্জ সৈয়দ আশিকুর রহমান বলেন, আমি আদালতে স্বাক্ষী দিতে আলমডাঙ্গার থানার বাইরে আছি। তবে তিনি বলেন, থানায় মামলা হয়েছে। এ ব্যাপারে আদালতে একটি প্রসিগেশন পাঠানো হবে।

কুকুরছানা হত্যাকারী রূপক মিয়া জানান, রাতে মা কুকুর তার ছানাদের নিয়ে ঘেউ ঘেউ শব্দ করে ডাকে। এতে বিরক্ত হয়ে তিনি কুকুর ছানা তিনটিকে পিটিয়ে মেরে ফেলেছেন।

Loading...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here