বিয়ের ৪৫ দিনেই সন্তান প্রসব!

সোহাগ নামে যুবকের সাথে দীর্ঘ পাঁচ বছরের প্রেম। সেই প্রেম ভেঙে দেড় মাস আগে বিয়ে হয় সাদ্দাম নামের এক ছেলের সাথে। বিয়ের মাত্র ৪৫ দিনের মাথায় ওই তরুণী মৃত কন্যা সন্তান প্রসব করেছেন।

এ ঘটনায় প্রেমিকের বিরুদ্ধে ধর্ষকের অভিযোগ করেছেন থানায়। পুলিশ তরুণীর প্রেমিক ও গর্ভপাত ঘটানোর দায়ে স্বামীকে আটক করেছে। মঙ্গলবার বিকেলে মিরপুর থানা পুলিশ ওই নারীর প্রেমিক ও স্বামীকে আটক করে।

এর আগে মঙ্গলবার সকালে মিরপুর থানায় ধর্ষণের অভিযোগ এনে এজাহার দায়ের করেন ওই নারী নিজেই।

আটককৃতরা হলেন, ভিকটিমের প্রেমিক কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার পোড়াদহ ইউনিয়নের স্বরুপদহ শিলের খাল এলাকায় খয়বার আলীর ছেলে সোহাগ (১৮) ও স্বামী একই উপজেলার ধুবাইল ইউনিয়নের কাদেরপুর গ্রামের মোফাজ্জেল হোসেনের ছেলে সাদ্দাম হোসেন (২২)।

ওই নারীর দায়ের করা মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, সোহাগের সাথে পাঁচ বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক ছিল তার। গত বছরের ২ ফেব্রুয়ারি সোহাগ তাকে একটি নির্মাণাধীন বাড়িতে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করে। এছাড়াও বিভিন্ন সময় তার সাথে শারীরিক সম্পর্ক করে। একাধিকবার শারীরিক সম্পর্ক হলেও গর্ভবর্তী হওয়ার বিষয়টি ভিকটিম অনুমান করতে পারেননি বলে এজাহারে উল্লেখ করেছেন।

তিনি এজাহারে আরো উল্লেখ করেছেন, এক পর্যায়ে দেড়মাস আগে ভিকটিমের পিতামাতা সাদ্দাম হোসেনের সাথে তার বিয়ে দেয়। গত ১৯ জানুয়ারি রাতে স্বামী তাকে ৪টি ট্যাবলেট খাওয়ালে পেট ব্যথা শুরু হয়। পরদিন ২০ জানুয়ারি মিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে ৭/৮ মাসের মৃত কন্যা সন্তান প্রসব করেন ওই তরুণী। পরে মৃত কন্যা সন্তানটিকে স্বামীর গ্রামের কবরস্থানে দাফন করা হয়।

মিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুুল কালাম জানান, অভিযুক্ত প্রেমিক সোহাগকে এবং ওই নারীর গর্ভপাতের দায়ে তার স্বামী সাদ্দামকে আটক করা হয়েছে। পরে আদালতের মাধ্যমে তাদের জেল হাজাতে পাঠানো হয়।

Loading...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here