নারীর সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় পুলিশ আটক, গণপিটুনি

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার বাবরা গ্রামের একটি বাড়িতে নাসির হোসেন নামে পুলিশের এক কনস্টেবলকে নারীসহ বন্দী করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় পুলিশ কনস্টেবল নাসির ও ওই গৃহবধূকে মারধর করে পরিবারের অন্য সদস্যরা। সোমবার (১০ ফেব্রুয়ারি) রাত ৮টার দিকে এ ঘটনার পর কালীগঞ্জ থানার পরিদর্শকসহ (তদন্ত) পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তাদেরকে উদ্ধার করে। পুলিশ সদস্য নাসির হোসেন কালীগঞ্জ থানায় কনস্টেবল পদে কর্মরত।

ওই গৃহবধূ সাংবাদিকদের জানান, তার বাবার বাড়ি কাশিপুর। সেখান থেকেই নাসিরের সঙ্গে পরিচয়। আজ দিয়ে উনি বাড়িতে এসেছেন। ঘরের দরজা খোলা অবস্থায় তাকে আমি নাস্তা করতে দেয়। উনি নাস্তা করার সময় হঠাৎ কয়েকজন ঘরের মধ্যে ঢুকে আমাদের মারধর শুরু করেন। তিনি আরও জানান, তার স্বামী চিনি কলে চাকরি করে। সে বাড়িতে ছিল না। আমার শ্বশুরবাড়ির অনেকেই আমাকে দেখতে পারে না। এজন্য আমাকে নিয়ে এমন চক্রান্ত করছে। ওই পুলিশের সঙ্গে আমার কোনো কিছুই হয়নি।

আপত্তিকর অবস্থায় দেখা জুয়েল নামের এক যুবক বলেন, ‘তিনি আমার ভাইয়ের স্ত্রী। আমি বাড়িতে ভাত খাচ্ছিলাম। এ সময় আমার স্ত্রী বলে, দেখো ওই ঘরে কে যেন এসেছে। অনেক সময় হয়ে গেছে এখনো বের হয়নি। এরপর আমি ভাত খেয়ে আমার চাচার সঙ্গে নিয়ে তাদের বন্দী করে রাখি।’ ঘটনাস্থলে অভিযুক্ত পুলিশ সদস্য নাসির হোসেন বলেন, ‘ ওই নারী পুলিশের সোর্স হিসেবে কাজ করে। এ জন্যই মূলত আসা। আসার পরপরই এই ঘটনা ঘটে। এ ছাড়া তেমন কিছুই না।’ কালীগঞ্জ থানার ওসি মুহা. মাহফুজুর রহমান মিয়া বলেন, নাসির নামে ওই পুলিশ সদস্যকে সাসপেন্ড করা হয়েছে।

Loading...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here