প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ১৪ যুবকের কাণ্ড!

ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটে প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ১৪ বছরের এক মাদ্রাসা ছাত্রীকে বাড়ি থেকে তুলে নেয়া চেষ্টা করেছে বখাটে মো. শফিকুল ইসলাম ও তার সহযোগীরা। এ ঘটনায় ১০ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শনিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যার পর উপজেলায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ওই দিন রাতেই হরমুজ আলী বাদী হয়ে হালুয়াঘাট থানায় অপহরণের মামলা দায়ের করেন। ওই কিশোরী জানায়, মাদ্রাসায় যাওয়া আসার পথে শফিকুল ইসলাম আমাকে উত্যক্ত করত ও পেমের প্রস্তাব দিত। এই প্রস্তাবে রাজি না হওয়াতেই আমাকে বাড়ি থেকে তুলে নেয়ার চেষ্ট করে।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন, শফিকুল ইসলাম উপজেলার আমতৈল ইউনিয়নের বিষমপুর গ্রামের মো. সায়দুল ইসলামের ছেলে ও তার সহযোগী আবুল সরকার এর পুত্র মিজানুর রহমান দিপু, কাজিয়াকান্দা গ্রামের আকিকুল ইসলাম এর পুত্র রাতুল ইসলাম, গোদারিয়া গ্রামের বাবুল মিয়ার পুত্র মোনাদজেল আল মাহী, হারুন অর রশিদ এর পুত্র আওলাদ, হুছাইন মাহমুদ এর পুত্র নয়ন মিয়া, নজরুল ইসলাম এর পুত্র শাহাজাহান সম্রাট, আকরাম হোসেনের পুত্র সাহাব এবং পাইকপাড়া গ্রামের আঃ হালিম এর পুত্র আশিক অপহৃতার নিজ বাড়ী থেকে টেনে হিচড়ে মোটরসাইকেল যোগে অপহরণের চেষ্টাকালে শিক্ষার্থীর ডাক-চিৎকারে অপহৃতার নানা হাজী মোস্তাক আহমেদ নাসিম।

হালুয়াঘাট থানার ওসি বিপ্লব কুমার দাস বলেন, ৯৯৯ কল পাওয়ার পর পুলিশ গিয়ে ১০ অপহরণকারীসহ ৪টি মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়। তিনি আরও বলেন, মো. শাকিল আহমেদ তার বন্ধুদের নিয়ে সাতটি মোটরসাইকেলসহ তেরো-চৌদ্দ জনের একটি দল নিয়ে ওই শিক্ষার্থীর বাড়িতে গিয়ে তাকে টানাহেঁচড়া করে মোটরসাইকেলে তোলার চেষ্টা করে।

ওসি আরও জানান, এ সময় শিক্ষার্থীর ডাক-চিৎকারে গ্রামের লোকজন এসে চারটি মোটরসাইকেলসহ ১০ অপহরণকারীকে আটক করতে সক্ষম হয়। বাকী আসামীরা পালিয়ে গেছে। পরে স্থানীয়রা ৯৯৯ কল দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদের আটক করে। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। রবিবার (৯ ফ্রেব্রুয়ারী) দুপুরে গ্রেফতাকৃতদের আদালতে পাঠানো হবে বলে বলেও জানান তিনি।

Loading...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here