নাগেশ্বরীতে হিন্দু সম্প্রদায়ের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ

রতি কান্ত রায়, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের কুটি পয়ড়াডাঙ্গা নিভৃত পল্লীর­ অসহায় মানুষের কনকনে শীত আর শৈত্যপ্রবাহে কষ্টের সীমা নেই। মানুষের এ কষ্ট লাঘবে নিজস্ব অর্থায়নে ও ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস এর সহযোগিতায় পাশে দাঁড়িয়েছেন নাগেশ্বরীর কৃতি সন্তান ও ঢাকা ডিএমপির অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মোঃ জাহাঙ্গীর আলম ও সভাপতি ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস অফিসার্স কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড।

শনিবার ও রবিবার নাগেশ্বরী উপজেলা ও পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের কুটিপয়ড়াডাঙ্গা নিভৃত গ্রামে দরিদ্র ও অসহায় হিন্দু সম্প্রদায়ের শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়। অত্র গ্রামের অসহায় শীতার্ত মানুষ শীতবস্ত্র পেয়ে অত্যন্ত আনন্দিত এবং গ্রামের সবাই সমাজসেবামূলক এরকম কাজের জন্য প্রশংসা ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন অত্র গ্রামের ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ হাছেন আলী ও গ্রামের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

কুটিপয়ড়াডাঙ্গা নিভৃত গ্রামের শীতার্ত ফুলতি, ঝর্ণা বালা, লক্ষী কান্ত, গনেশ ব্রজেন ও মহেন্দ্র জানান, আমাদের এলাকার কৃতি সন্তান ডিএমপির অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মোঃ জাহাঙ্গীর আলম ও তাদের পরিবার প্রতি বছর গ্রামের অসহায় মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করেন এবারও আমরা সকল হিন্দু পরিবার শীতবস্ত্র পেয়ে আনন্দিত। সে ও তাদের পরিবার সবসময় গ্রামের অসহায়, দরিদ্র মানুষের জন্য কাজ করে এবং গ্রামের উন্নয়নে অনেক কাজ করছে। আমরা তাদের জন্য সর্বদা দোয়া করি।

অত্র গ্রামের ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ হাছেন আলী জানান, আমাদের গ্রামের কৃতি সন্তান এডিসি জাহাঙ্গীর ভাই ও তাদের মুক্তিযোদ্ধা পরিবার গ্রামের অসহায় মানুষের পাশে থেকে গ্রামের উন্নয়নে কাজ করছে। আমরা গ্রামবাসী সকলেই তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি এবং সবসময় তাদের পাশে থেকে আমরা গ্রামবাসী গ্রামের উন্নয়নে কাজ করবো।

এছাড়াও ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস অফিসার্স কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেডের উদ্যোগে কুড়িগ্রাম নাগেশ্বরী উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে অসহায় ও দরিদ্র পরিবারদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়।

সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম জানান, আমাদের সমাজসেবামূলক সংগঠন ত্রিমাত্রিক-৩০ বিসিএস দেশের বিভিন্ন জেলায় নানামুখী কল্যাণমূলক কাজ করে থাকে। আজ এই সংগঠনটির উদ্যোগে কুড়িগ্রাম জেলায় কল্যাণমূলক কার্যক্রম শুরু হলো, – এ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।
রতি কান্ত রায়

Loading...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here