কুমারখালীতে হাঁসের উপদ্রবে বিনষ্ট হাজার বিঘা জমির ক্ষেত

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি ঃ কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার নন্দনালপুর ইউনিয়নের খামারী হারেজ, শরিফ ও রফিকের প্রায় ৩ হাজার হাঁসের উপদ্রবে হুমকির মুখে চাদপুর বিলের প্রায় এক হাজার বিঘা জমি।বিভিন্ন ফসলী বীজতলা সহ বিনষ্ট হচ্ছে ফসল।হাঁসের বিষ্টা পানিতে মিশে যাওয়ার কারনে চর্মরোগ সহ নানান সমস্যায় ভুগছে কৃষক।

ভুক্তভোগী কৃষকেরা বার বার খামারীকে তাদের নানাবিধ সমস্যা জানানোর পরও কোন প্রতিকার না পাওয়ায় সোমবার সকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ জানিয়েছে কৃষকেরা।

লিখিত অভিযোগে কৃষকেরা জানান, নন্দনালপুর ইউনিয়নের দুর্গাপুর গ্রামের মৃত সকেমদ্দীন শেখের তিন সন্তান হারেজ,শরীফ ও রফিক বেশ কিছু দিন আগে একটি অরক্ষিত, পরিবেশের ছাড়পত্র ছাড়ায় অবৈধ হাঁসের খামার করে।এতে প্রায় তিন হাজার হাঁস আছে।হাঁস গুলো খামারীরা উন্মুক্ত পরিবেশে লাগামহীনভাবে চাদপর বিলে ছেড়ে দেওয়া থাকে।ফলে ওই বিলের চাষীদের বিভিন্ন ফসলী বীজতলা সহ ফসল বিনষ্ট হচ্ছে।এছাড়াও হাঁসের বিষ্টা পানিতে মিশে যাওয়াই কৃষকেরা জমিতে পা রাখলেই শুরু হয় চুলকানি।অধিকাংশ কৃষকেরায় ভুগছে চর্মরোগে।

সরেজমিন গেলে কৃষকেরা জানান, হাঁসের জ্বালায় আমরা অতিষ্ঠ। পানিতে নামলেই চুলকানি শুরু হয়।বোরো মৌসুম শুরু হলেও বীজতলা তৈরি করতে পারছি না।

এবিষয়ে খামারী শরীফ জানান, খামারে প্রায় ১ হাজার দুইশত হাঁস আছে।হাঁস গুলোর জন্য লোক রাখা আছে।খামারের আশেপাশের সকল জমিই আমার।কারো সমস্যা হলে সে সেই জমি আমি লিজ নিবো।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাজীবুল ইসলাম খান জানান,এবিষয়ে কৃষকেরা একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি।তদন্ত স্বাপেক্ষ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Loading...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here