কুমারখালীতে সরকারি স্কুলের জমি বেদখল করে মার্কেট বানানোর অভিযোগ

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি ঃ কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলাধীন ১১৪ নং মির্জাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জমি বেদখল করে মার্কেট বানানোর পায়তারা করার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় প্রভাবশালী অনিরদ্দিন প্রামানিকের বিরুদ্ধে। সরকারি স্কুলের জমি বেদখলমুক্ত, নির্মাণাধীন কাজ বন্ধ ও অপসারনের দাবিতে একটি লিখত অভিযোগ করেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এবং অভিযোগের প্রেক্ষিতে নির্মাণ কাজ বন্ধ করেন উপজেলা সহকারি কমিশনার(ভূমি)।

রোববার বিকাল ৩ টার দিকে সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়,বিদ্যালয়ের সম্মুখে খেলার মাঠ নষ্ট করে অবৈধভাবে প্রাচীর নির্মাণ করেছেন স্থানীয় প্রভাবশালী অনিরদ্দিন প্রামানিক।

এবিষয়ে বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক বাবর উদ্দিন জানান, অনিরদ্দিন প্রামানিক ও তার ছেলেরা জোরপূর্বক বিদ্যালয়ের খেলার মাঠ বেদখল করে প্রাচীর নির্মাণ করেছে।বিষয়টি উপজেলা সহকারি কমিশার (ভূমি) বরাবর লিখিত অভিযোগ জানালে তিনি নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দেন।

এবিষয়ে জমিটির নাম পত্তন বাতিলের জন্য লিখিত অভিযোগ করেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। লিখিত সুত্রে জানা যায়,কুমারখালী উপজেলাধীন শিলাইদহ ভূমি অফিসের অধীন ১৯ নং মির্জাপুর মৌজার আর এস ৪২২ নং খতিয়ানের খরিজ খতিয়ানের মালিক মোঃ সাব্বির আহম্মেদ মাসুদ এর নামে লিপিবদ্ধ আছে। গত ১৬/০৪/২০০৪ ইং তারিখে ১৬৮৪ ন দলিলে ও ২৬/০২/১৯৯৫ তারিখে ১০৫০ নং দলিলে ১৪৪ ন মির্জাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নামে আর এস ৭২৭ নং দাগে ০.০৯০০ একরের মধ্যে ০.০৩৮০ একর জমি রেজিস্ট্রি করিয়া দেন। উপরোক্ত বিবাদী গত ১১/০৪/২০১১ তারিখে ১৭৬০ নং হেবার ঘোষনা পত্র দলিলে মুরাদ আলী উপরোক্ত বিবাদী সাব্বির আহম্মেদ মাসুদ এর বরাবর আর এস ৭২৭ নং আরও অপর সাতটি দাগ উল্লেখ করিয়া ৭২৭ ও ৮৪৯ নং দাগে ভোগ দখল দেখাইয়া ৭২৭ ও ৮৪৯ নং দাগ হইতে ০.২৩০০ একর জমি উপরোক্ত ১৪৬৮/৯-২/২০১১/২০১২ নং খারিজ কেসে বিবাদীর নাম পত্তন করেন।

এবিষয়ে অনিরদ্দিন প্রামানিকের ছেলে হাসান জানান,জমি আমাদের। আমরা স্কুল কর্তপক্ষকে বৈধ কাগজপত্রাদি দেখাতে বলে হলেও তারা দেখাননি।

জানা যায়,১৯৮৯ সালে ৩৩ শতক খরিদকৃত জায়গার উপর বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত এবং বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১৯০ জন।

Loading...

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here